সর্বশেষ

কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে শিল্পীরা

দিনাজপুর জেলায় শ্বারদীয় দুর্গোৎসবের ব্যাপক প্রস্তুতি

দিনাজপুর জেলায় শ্বারদীয় দুর্গোৎসবের ব্যাপক প্রস্তুতি

দিনাজপুর : এবার দিনাজপুরের ১৩টি উপজেলায় ১২৩৩টি মন্ডপে শ্বারদীয় দুর্গোৎসবের আয়োজন বেশ জোরেসোরে চলছে। আর কয়েকদিন পরেই হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হতে যাচ্ছে। পূজাকে ঘিরে জেলার ১৩টি উপজেলা জুড়ে চলছে প্রতিমা সাজানোর শেষ কাজ। ব্যস্ত সময় পার করছে শিল্পীরা। । পূজার সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে প্রতিমা কারিগরদের শেষ সময়ের ব্যস্ততা। দম নেওয়ারও ফুসরত নেই তাদের। রাত-দিন চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। উৎসবের আমেজ বইছে ঘরে ঘরে।
হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব পালনে শেষ কেনাকাটায় সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মার্কেট গুলোতে প্রচন্ড ভীর। দাম বেশী হওয়ায় বিত্তবানরা কেনাকাটা প্রায় শেষ করে ফেলেছে। মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র পরিবার গুলো এখনো কেনাকাট শেষ করতে পারেনি। শিশুদের নানা প্রলোভন দেখিয়ে এবং সান্তনা দিরেয় সময় অতিবাহিত করছে। হতাশায় ছাপ চোখেমুখে।
এবার জেলায় ১২৩৩টিপুজা মন্ডপে পুজা অনুষ্ঠিত হবে। সদরে ১৫৮টি ও দিনাজপুর পৌরসভায় ৩৯টি মন্ডপে পুজা অনুষ্ঠিত হবে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ও উৎসব মুখোর পরিবেশে পুজা উদযাপনে পুজা উদযাপন পরিষদ সবধরনের প্রস্তুতি গ্রহন করেছে। সেই সাথে আইন শৃংখলা রক্সাকারী বাহিনীও ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখার জন্য।
শ্বারদীয় দুর্গোৎসব পুজা উদযাপন পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু ও সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার রায় জানান, এবার শ্বারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপনে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। শান্তিপূর্ণ ও উৎসব মুখোর পরিবেশে পুজা উদযাপনে ইতিমধ্যে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী, জেলা প্রশাসন ও প্রতিটি পুজা মন্ডপের কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকদের সাথে একাধিক বৈঠক করা হয়েছে। ছোটখাটো ত্রুটি গুলোর সমাধান করা হয়েছে। আশা করি অত্যন্ত শাুিন্তপূর্ণ ও সৌহার্দ এবং উৎসব মুখোর পরিবেশে শ্বারদীয দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। দিনাজপুরে শান্তিপূর্ণ পরিবেশের ঐতিহ্য বজায় রাখার জন্য দিনাজপুরের শান্তিপ্রীয় মানুষের সর্বাত্বক ও আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি। শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে আইন শৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীও ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে। আশাকরি শান্তিপূর্ণ পরিবেশে শ্বারদীয় দুর্গোৎসব প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে সম্পন্ন হবে। সভাপতি স্বরুপ কুমার বকসী বাচ্চু ও ও সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার রায় আগাম শ্বরদীয দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
সভাপতি বাচ্চু জানান, এবার জেলায় পুজা মন্ডপের সংখ্যা বেড়েছে। শ্বারদীয দুর্গোৎসব বাঙ্গালীর উৎসব হিসাবে সবাই এই উৎসবে অংশ গ্রহন করেন। প্রতি বছরের ন্যায় এবারো সবাই মিলে এই উৎসব পালন করবে আমি আশাকরি।
এদিকে চিরিরবন্দর পুজা কমিটি সূত্রে জানা গেছে, হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হতে যাচ্ছে। আর এই পূজাকে ঘিরে উপজেলা া জুড়ে চলছে প্রতিমা সাজানোর শেষ কাজ। ফলে ব্যস্ত সময় পার করছে শিল্পীরা।
এবার দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলায় ১৪৩টি মন্দিরে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন চিরিরবন্দর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র রায়উপজেলার ১২টি ইউনয়নের সরেজমিন ঘুরে একই চিত্র দেখা গেছে। প্রতিমা শিল্পীদের নিপুণ আঁচড়ে তৈরি হচ্ছে এক একটি প্রতিমা। নিজের মায়ের মতো অতি ভালবাসায় তৈরি করা হচ্ছে দুর্গা, সরস্বতী, লক্ষ্মী, কার্তিক, গণেশ, অসুর ও শিবের মূর্তি। হৃদয়ের ভালবাসায় চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। প্রতিমার আকার ও শৈল্পিক গঠন অনুযায়ী প্রতিমা শিল্পীরা ১০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত পারিশ্রমিক নিয়ে থাকেন।
চিরিরবন্দর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: হারেসুল ইসলাম জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তার সকল প্রস্তুতি চলছে। উপজেলায় ৫৫টি ঝুঁকিপূর্ণ পূজাম-প চিহ্নিত করা হয়েছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা ধর্মীয় ভাবগাম্ভীযের মধ্যেই পালিত হবে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: গোলাম রব্বনী জানান, উপজেলায় ১৪৩টি পূজা ম-পে নির্ধারিত বরাদ্বের আশ্বাস পাওয়া গেছে। তা আসা মাত্র সব গুলো ম-পে প্রদান করা হবে।

মন্তব্য করুন