Kurigram | Kurigram District (সিরাজগঞ্জ জেলা) - All Information & Current News | bdlives.com

১৮৫৮সালে ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর কাছ থেকে ভারতের শাসন ভার ব্রিটিশ সরকার নিজহাতে তুলে নেয়। ব্রিটিশ সরকার শাসন-শোষণকে মজবুত করার জন্যে পদক্ষেপ গ্রহণকরে শক্ত প্রশাসনের মাধ্যমে। কোম্পানী আমলে কুড়িগ্রাম চারটি বিভাগে (থানা)বিভক্ত ছিল। এ বিভাগগুলো হচ্ছে বড়বাড়ী, উলিপুর,চিলমারী ও নাগেশ্বরী। এখানথেকে কোম্পানীর কালেক্টররা নিয়মিত এসে রাজস্ব আদায় করে নিয়ে যেতো। তখনকুড়িগঞ্জ ছিল বড়বাড়ী বিভাগের একটি স্থান, বালাবাড়ী ছিল কুড়িগঞ্জের প্রধানকেন্দ্র। এখন সে বালাবাড়ী পাটেশ্বরীর পাশে অবস্থিত। ব্রিটিশ সরকার ১৮৭৫সালের ২২ এপ্রিল প্রতিষ্ঠিত করে কুড়িগ্রাম মহকুমা। লালমনিরহাট, উলিপুর, চিলমারী, রৌমারী, নাগেশ্বরী ভূরুঙ্গামারী, ফুলবাড়ী ও কুড়িগ্রাম থানা নিয়েগঠিতহয় এ মহকুমা। স্যার উইলিয়াম হান্টার তাঁরGazetter of the Rangpur District-এ কুড়িগ্রাম-কে কুড়িগঞ্জ বলেছেন। ১৮০৯ সালে ডাঃ বুকালন হ্যামিলটন তাঁর বিবরণীতে বলেছেন-Kuriganj of which the market place is called Balabari in a place of considerable trade (martins Eastern India)।মিঃ ভাস তাঁর রংপুরের বিবরণীতেও এ অঞ্চলকে কুড়িগঞ্জ বলে উল্লেখ করেছেন। কিন্তুকুড়িগঞ্জ নামের উৎপত্তি সম্বন্ধে কেউ কিছুই বলেননি। কুড়িশব্দটি অনার্য। এখানো গ্রাম বাংলায়, বিশেষ করে এ অঞ্চলে কুড়ি হিসেবে গোনারপদ্ধতি চালু রয়েছে। বিশিষ্ট পন্ডিত জা পলিলুস্কি প্রমাণ করেছেন যে, গণনারএই পদ্ধতি বাংলায় এসেছে কোল ভাষা থেকে। কোল অষ্ট্রিক ভাষা গোষ্ঠীরঅন্তর্গত। আরব অষ্ট্রিক ভাষায় কুর বা কোর ধাতুর অর্থ হলো মানুষ। কুড়িহিসেবে গোনার পদ্ধতিটিও এসেছে মানুষ থেকেই। এ অষ্ট্রিক কারা ? পন্ডিতদেরমতে, প্রত্ন-প্রস্তর যুগে এ অঞ্চলে বাস করতো নিগ্রো জাতি। এরপর আসেনব্য-প্রস্তর যুগ। আসামের উপত্যকা অতিক্রম করে আসে অষ্ট্রিক জাতীয়জনগোষ্ঠী। তারপরে আসে দ্রাবিড় ও মঙ্গোলীয়। এদের মিলিত স্রোতে ব্রহ্মপুত্রউপত্যকায় মানব সভ্যতার সূচনা হয়। এরাই লাঙ্গল দিয়ে চাষের প্রবর্তন করেছে।কুড়ি হিসেবে গোনার পদ্ধতি করেছে চালু। নদ-নদীতে ডিঙ্গি বেয়েছে, খেয়েছেশুটকী, খেয়েছে বাইগন বা বেগুন, লাউ বা কদু, কদলী বা কলা, জাম্বুরা, কামরাঙ্গা। করেছে পশু পালন। এঁকেছে কপালে সিঁন্দুর। করেছে রেশম চাষ। করেছেতামা, ব্রোঞ্জ ও সোনার ব্যবহার। ১৮৭৫ সালের ২২ এপ্রিল কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, উলিপুর, চিলমারী, রৌমারী, নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারী ও ফুলবাড়ী এই ৮টি থানা নিয়ে কুড়িগ্রাম মহকুমার জন্ম হয়। এরপর ১৯৮৪ সালের ২৩ জানুয়ারি কুড়িগ্রাম সদর, নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারী, রাজারহাট, উলিপুর, চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর এই ৯টি উপজেলা নিয়ে কুড়িগ্রাম জেলায় উন্নীত হয়।